স্কাইপ ইন্টারভিউ ভাল করার যুগান্তকারী কিছু টিপস

ইউরোপীয় কিছু বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে যারা ব্যাচেলর, মাস্টার ও পিএইচডি প্রোগ্রামে ভর্তির জন্য Skype Interview-স্কাইপ ইন্টার্ভিউ নিয়ে থাকে। ডিপার্টমেন্টের প্রফেসর অথবা ফ্যাকাল্টির ডিন ১৫-৩০ মিনিট সময় ধরে ইন্টার্ভিউ নিয়ে থাকে। এখানে সাধারণ প্রশ্ন জিজ্ঞেস করা হয়। তবে কিছু বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে যারা ভর্তি পারপাসে স্কাইপ ইন্টার্ভিউ নিয়ে থাকে না সেজন্য আপনাকে স্ব স্ব বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিতে হবে।

মূলত স্কাইপ ইন্টার্ভিউ ০৪টি বিষয়ের থেকে প্রশ্ন করা হয়। সিভি, মোটিভেশন লেটার, একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট,থিসিস এবং সর্বশেষ ডিগ্রির বেসিক টার্ম।

অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে যাদের ধারনা নেই  কি ধরনের প্রশ্ন স্কাইপ ইন্টারভিউয়ে হতে পারে। এখানে ভয়ের কিছু নেই এটি একটি সাধারণ কথোপকথন পর্যায়ের বিষয়। তবে অবশ্যই আপনার শেষ একাডেমিক ডিগ্রী সম্পর্কে ভাল ধারনা থাকতে হবে অন্যথায়, ইন্টার্ভিউ ভাল করা দুষ্কর হবে।

 Skype Interview-স্কাইপ টেস্টের পূর্ব প্রস্তুতি

 ১। সিভি তে যা যা উল্লেখ করেছেন সেগুলি দেখে নিন।

২। মোটিভেশন লেটার ভালোভাবে রিভাইস করুন এবং যে সকল বিষয় লিখেছেন এবং এর সাথে সম্পর্কিত সকল বিষয়ের ধারনা নিন।

৩। আপনার শেষ ডিগ্রীতে যত গুলি বিষয় পড়েছেন সকল বিষয় সম্পর্কে আবারও ধারনা নিন।

৪। আপনি এই প্রতিষ্ঠানে কেন অধ্যয়নের জন্য মনঃস্থির করেছেন?

৫। আপনারা লক্ষ্য,কি হতে চান, কেন এই দেশে অধ্যয়ন করতে চান?

৬। আপনি এই বিশ্ববিদ্যালয় সম্বন্ধে কিভাবে অবগত হলেন/কিভাবে এর নাম জানলেন?

টিপস: এই প্রশ্নের জবাবে অনেকে উত্তর দেয় আমি ইন্টারনেটের মাধ্যমে জেনেছি, ইহা কোনভাবেই ভাল উত্তর নয়। প্রতিটি দেশের নিজস্ব অফিশিয়াল ওয়েবসাইট রয়েছে, আপনি বলতে পারেন যে আমি তোমাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট www. থেকে বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে প্রথম জেনেছি।

তারপর বিভিন্ন ব্লগে এই বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে রিভিউ পড়েছি এবং বিস্তারিত জানার সুযোগ পেয়েছি।

৭। আপনি কেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার সিদ্ধান্ত নিলেন

টিপস: এখানে আপনি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেঙ্ক নিয়ে কথা বলতে পারেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার কথা বলতে পারেন, আপনি যে বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করতে আগ্রহী তা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে। এছাড়া আপনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ইতিবাচক বিষয় নিয়ে কথা বলতে পারেন যেগুলি আপনাকে প্রভাবিত করেছে।

কেন আপনি আমার দেশে পড়াশোনার সিদ্ধান্ত নিলেন?

টিপস: আপনি যে দেশে যাচ্ছেন তাদের শিক্ষার মান নিয়ে গুণকীর্তন করুণ। বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে ঐ দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার পার্থক্য করুণ। আপনার বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে গুণকীর্তন করুণ। এবং সর্বশেষ আপনার ক্যারিয়ারে কিভাবে ঐ দেশের ডিগ্রি প্রভাব ফেলবে এই নিয়ে কথা বলতে পারেন।

১০। যে দেশে যাচ্ছেন তাঁর সম্বন্ধে কিছু বলুন?

টিপস: আপনারা খেয়াল করবেন  আমি চেক প্রজাতন্ত্র, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া, এস্তোনিয়া দেশ নিয়ে বিস্তারিত লিখেছি যেমন এদের ইতিহাস, স্বাধীনতার প্রেক্ষাপট, এদের জনসংখ্যা সহ বিস্তারিত তথ্য দেওয়া আছে। আমার কাছে মনে হয় আপনারা যদি আমার এই লেখাগুলি পড়েন তাহলে স্ব স্ব দেশ নিয়ে কোন প্রকার তথ্যের অভাব থাকবে না আশাকরি।

১১। কোর্স শেষ করার পর আপনি কি করবেন?

টিপস: কোর্স শেষের পর আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করবেন।

১২। আপনি বর্তমানে কি করছেন?

টিপস: যদি ছাত্র হয়ে থাকেন তাহলে প্রতিষ্ঠানের নাম বলুন এবং চাকুরীজীবী হলে প্রতিষ্ঠানের নাম বলুন। চাকুরীজীবী হলে ইন্টারভিউয়ার জিজ্ঞেস করবে আপনার চাকরির রেস্পন্সসিভিলিটি কি কি, কোথায় চাকুরী করছেন, কত বেতন পান, কত দিন বা মাস ধরে চাকুরী করছেন, ভিসা এপ্রুভড হলে চাকুরী থেকে ইস্তফা দিবেন নাকি লিভ নিবেন এই সকল বিষয় জিজ্ঞেস করবে।

১৩। নিজ সম্পর্কে কিছু বলুন?

টিপস: সংক্ষেপে নিজ সম্পর্কে বলুন। অবশ্যই আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার কথা বলবেন(অনেকে স্কুল কলেজের নাম বলে ইহা এখানে বলবেন না) এই নিয়ে বিস্তারিত টিপস গুগল থেকে নিতে পারেন।

১৪। আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

টিপস: বলবেন।

১৫। আপনার সর্বশেষ ডিগ্রির নাম কি এবং রেজাল্ট কি ছিল?

টিপস: বলবেন।

নোট: মনে রাখবেন উপরের প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর আপনার মোটিভেশন লেটার অনুযায়ী হবে, আপনি মোটিভেশন লেটারে লিখেছেন একরকম স্কাইপ টেস্টে উত্তর দিচ্ছেন আরেক এরকম, এমন হলে সমস্যায় পড়বেন। আশাকরি এই নির্দেশনা মোতাবেক আপনি ভাল একটি স্কাইপ টেস্ট দিতে পারবেন।

এছাড়া আরো কিছু প্রশ্ন সম্পর্কে জানতে চাইলে চেক কলেজের অয়েভসাইটে গিয়ে এক নজর দেখে নিতে পারেন। স্কাইপ ইন্টার্ভিউয়ের টিপস এর জন্য চেক কলেজকে  রেফার করেছি ভর্তির জন্য নয়। আমাদের কাছে তাদের স্কাইপ টেস্ট এর প্রশ্নের স্যাম্পল ভাল লেগেছে।

 

 

মন্তব্যসমূহ

Facebook