স্লোভেনিয়ার রাজধানীর উচ্চারণঃ লুজব্লিজআনা/লুজবানা/লুভিয়ানা

স্লোভেনিয়া মধ্য ইউরোপের ছোট একটি দেশ। স্লোভেনিয়া যুগোস্লাভিয়া থেকে স্বাধীনতা পায়। এই স্বাধীনতা প্রায় রক্তহীন ছিল। স্লোভেনিয়া কে ইউরোপের পূর্ব ও পশ্চিমের সেতু হিসাবে বিবেচনা করা হয়, এর পাশাপাশি স্লোভেনিয়া কে ইউরোপের হার্ট বলা হয়। স্লোভেনিয়া প্রজাতন্ত্র সুন্দর একটি দেশ এবং সুশৃঙ্খল, এর ফলে এখানে প্রতি বছর প্রচুর পর্যটক ভীর জমায়। স্লোভেনিয়া তে খুব বেশি বাংলাদেশী শিক্ষার্থী পড়াশুনা করতে আসে না। এর মূল করন এই দেশে মাত্র ৩টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে এবং তাদের ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের জন্য কৌটা যথেষ্ট কম তাছাড়া এডমিশন প্রক্রিয়া চেক প্রজাতন্ত্র, স্লোভাকিয়ার চেয়ে একটু জটিল। ১৯৯১ সালে স্লোভেনিয়া স্বাধীনতা পায়। আমরা যদি সমাজতন্ত্রের উদার উদাহরণ খুঁজি, আমাদেরকে অবশ্যই স্লোভেনিয়ার ইতিহাসের দিকে চোখ রাখতে হবে। ইউরোপের ভিতর এক মাত্র দেশ যারা সমাজতন্ত্র থেকে প্রচুর সুবিধা ভোগ করেছে। ইউনিভার্সিটি অফ লুভিয়ানা বিশ্বের টপ রেঙ্কড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সারিতে রয়েছে। কেউ যদি সারা বিশ্বের ভাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেঙ্কড করে সেখানে যদি বলা হয়, এখান থেকে টপ ৩ পার্সেন্ট বিশ্ববিদ্যালয় বেছে নিতে , অবশ্যই ঐ ৩ পার্সেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় ইউনিভার্সিটি অফ লুভিয়ানা থাকবে।

স্লোভেনিয়ার রাজধানীর নাম  Ljubljana । এই শহরে উচ্চারণটি সত্যি আজব।  Ljubljana তে গিয়েছে কিন্তু শহরের উচ্চারণ নিয়ে দ্বিধা দ্বন্দ্বে পড়ে নাই এমন লোক পাওয়া খুবি দুষ্কর হবে।  ইউটিউবে দেখলে বুজা যায় এর লেখার সাথে উচ্চারণের পার্থক্য কত বেশি।  কেউ বলে লুজব্লিজআনা, কেউ বলে লুজবানা।  সঠিক উচ্চারণ টি হল লুভিয়ানা । ১৯১৮ সালে অস্ট্রো-হাঙ্গেরীয় সাম্রাজ্য পতনের পর, সার্বের কিংডম, ক্রোয়েস এবং স্লোভেনিয়া যোগদান করে। যা যুগোস্লাভিয়া হিসাবে পরিচিত।  ১৯৪১ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় স্লোভেনিয়াকে নাৎসি জার্মান ও ইতালি দখল করে নেয়।  ১৯৪৫ সালের যুদ্ধের  পর, স্লোভেনিয়া একটি সমাজতান্ত্রিক যুগোস্লাভিয়া তে পরিণত হয়।  ২৫ শে জুন, ১৯৯১ সালে স্লোভেনিয়া স্বাধীনতা পায় এবং সমাজতন্ত্র থেকে বাজার অর্থনীতিতে রূপান্তরের সফল গল্পটি শুরু করে। স্লোভেনিয়া তাঁর স্বাধীনতার পর থেকে আজ অবধি একটি স্থিতিশীল জিডিপি প্রবৃদ্ধি বজায় রেখেছে এবং বিশ্বের দরবারে এটি একটি নিরাপদ দেশ হিসাবে পরিচিতি পেয়েছে।  বর্তমানে যা নিঃসন্দেহে  ঝুঁকির মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে।  স্লোভেনিয়া ১ মে ২০০৪  সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগ দেয় এবং ১ জানুয়ারি ২০০৭ এ ইউরো চালু করে। স্লোভেনিয়া জানুয়ারি ২০০৮ থেকে জুন ২০০৮ পর্যন্ত ইইউ কাউন্সিলের প্রেসিডেন্সির দায়িত্ব পালন করেছে।  ২০১২ সালে যখন ইউরোপীয় দেশ গুলি আর্থিক মন্দায় ছিল তখন স্লোভেনিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন কে মন্দা থেকে পরিত্রাণের জন্য সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেছিল। স্লোভেনিয়ার বর্তমান জনসংখ্যা মাত্র ২ মিলিয়ন। বেশীরভাগ মানুষ খ্রীষ্ট ধর্ম লম্বি। এদের অফিসাল মুদ্রার নাম ইউরো। বর্তমান প্রেসিডেন্টের নাম Borut Pahor এবং প্রাই মিনিস্টারের নাম  Miro Cerar।

স্লোভেনিয়ার উচ্চ শিক্ষা ৪ টি সাইকেলে বিভক্ত: ১। শর্ট সাইকেল ( ২ বছরের ভোকেশনাল প্রোগ্রাম)। ২। ফার্স্ট সাইকেল ( ৩ থেকে ৪ বছরের বেচলর প্রোগ্রাম) ৩। সেকেন্ড সাইকেল ( ১-২ বছরের মাস্টার্স প্রোগ্রাম)  ৪। থার্ড সাইকেল ( ডক্টরাল প্রোগ্রাম বা পিএচডি )

উচ্চ শিক্ষা পাবলিক এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় উভয়ের সম্বলিত প্রচেষ্টায়  সংঘটিত হয়। স্লোভেনিয়ায় ৩ টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে  ১। University of Ljubljana, ২। University of Maribor, ৩। University of Primorska

এবং একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে university of Nova Gorica এর সাথে ছোট আয়তনের কিছু বেসরকারি কলেজ রয়েছে।

 

এপ্রিল ২০০৪ এর পর থেকে স্বীকৃত সকল স্লোভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত স্টাডি প্রোগ্রামগুলি ECTS অনুযায়ী ক্রেডিট পয়েন্টে পরিমাপ করা হয়। ০১ ক্রেডিট পয়েন্ট এর অর্থ হল  শিক্ষার্থীর  ২৫-৩০ শিক্ষা কর্মঘন্টা প্রতিনিধিত্ব করেছে; ০১ টি  একাডেমিক বছর  এর অর্থ হল একজন শিক্ষার্থী ১৫০০ থেকে ১৮০০ শিক্ষা কর্মঘন্টা প্রতিনিধিত্ব করেছে।

স্লোভেনিয়ার উচ্চ শিক্ষার মার্ক্স গ্রেডিং স্ট্রাকচার বাংলাদেশী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে খানিকটা ভিন্নতর। এখানে উচ্চতর শিক্ষা পর্যায়ে গ্রেড পয়েন্ট স্কেল অনুসরণ করে শিক্ষার্থীদের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করা হয় যা সর্বনিম্ন ৬ থেকে সর্বোচ্চ গ্রেড পয়েন্ট  ১০ পর্যন্ত। উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে, মার্ক্সের নির্ণায়ক স্কেল ২  থেকে সর্বোচ্চ গ্রেড পয়েন্ট ৫ পর্যন্ত।

যদি আপনি স্লোভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনার জন্য আবেদন করেন তবে আপনার পূর্ববর্তী শিক্ষার গ্রেড স্লোভেনিয়ান শিক্ষার গ্রেড স্কেলে রূপান্তরিত করে মূল্যায়ন করা হবে।  এই ক্ষেত্রে যারা ব্যাচেলর প্রোগ্রামে স্লোভেনিয়ার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করবেন তাদের ক্ষেত্রে এডমিশন পেতে  কিছু টা সমস্যা হতে পারে। কারণ আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা অনুযায়ী ৫০ পারসেন্ট এর গ্রেড পয়েন্ট ৩ যেটা স্লোভেনিয়ান গ্রেড স্কেলে ২ পয়েন্ট অর্থাৎ আপনি কোনরকমে পাশ করেছেন। বাংলাদেশী শিক্ষার্থীর কোন বিষয়ে রেজাল্ট যদি ৩ পয়েন্ট এর নিছে থাকে, সেক্ষেত্রে  ঐ শিক্ষার্থীকে স্লোভেনিয়া গ্রেডিং সিস্টেমে অকৃতকার্য ধরা হয়।

যারা মাস্টার্স প্রোগ্রামে এডমিশন নিতে  চান তাদের ক্ষেত্রে কোন প্রকার সমস্যা হবে না। বাংলাদেশী শিক্ষা পদ্ধতিতে আপনার পয়েন্ট সর্বনিম্ন ২.৫০ ইন দ্যা স্কেল অব ৪.০০ হলেই আপনি আবেদন করতে পারবেন। তবে যারা ডিভিশনে পাস  করেছেন তাদের ক্ষেত্রে স্লোভেনিয়ান পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে এডমিশন পাওয়া  অনেক দুষ্কর বিষয় হবে।

স্লোভেনিয়ার সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা, কোথায় কোন বিষয় টি রয়েছে, ভর্তি আবেদনের প্রক্রিয়া এবং ভর্তির শর্তাবলী জানতে স্টাডি প্রোগ্রাম সেক্সানে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ

Facebook